ব্রেকিং:
জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় শেখ হাসিনার পদক্ষেপ তিস্তায়ও আগ্রহী চীন আপনজনদের জীবনকে হুমকির মুখে ঠেলে দেবেন না : প্রধানমন্ত্রী বর্ডার এলাকার সব মানুষের দ্রুত করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক ফেনীর ৪ থানায় নতুন ওসি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডবের ঘটনায় গ্রেফতার ৪৬২ ফেনীতে ৪শ’ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিল রেড ক্রিসেন্ট বাসায় ডেকে ফ্রিজ ম্যাকারের অশ্লীল ভিডিও ধারণ, নারীসহ আটক ৬ কনস্টেবলকে সততার পুরস্কার দিলেন এসপি কুমিল্লা ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে পানিতে ডুবে মা-ছেলের মৃত্যু কোভিড কেয়ার সেন্টারে খাওয়ানো হচ্ছে গোমূত্র লকডাউন আরো সাতদিন বাড়তে পারে: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ক্ষুরা রোগের ৩৫ লাখ টিকা আমদানি করেছে সরকার করোনা টেস্টের নতুন ফি জানাল সরকার ঈদুল ফিতর সিয়াম সাধনার সাফল্য করোনায় মৃত্যু ১২ হাজার ছাড়ালো, একদিনে শনাক্ত ১২৩০ ঈদের তারিখ যেভাবে চূড়ান্ত করে চাঁদ দেখা কমিটি বৃহস্পতিবার থেকে ঈদের ছুটি শুরু, বুধবার শেষ কর্মদিবস নেপালকে করোনা চিকিৎসাসামগ্রী দিল বাংলাদেশ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায়
  • বুধবার   ১২ মে ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২৯ ১৪২৮

  • || ২৯ রমজান ১৪৪২

পঞ্চম দিন সকালেই লিটনের বিদায়

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৩ মে ২০২১  

শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজ নির্ধারণী টেস্টের শেষ দিনে লড়ছে বাংলাদেশ। ম্যাচ অন্তত ড্র করতে চাইলেও যতটা সম্ভব উইকেটে টিকে থাকতে হবে টাইগারদের। কিন্তু পঞ্চম দিন সকালেই লিটন দাসের উইকেট হারিয়েছে মুমিনুল হকের দল।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২০৪ রান। মেহেদী হাসান মিরাজ ২৫ ও তাইজুল ইসলাম ১ রানে ব্যাট করছেন।

পাঁচ উইকেটে ১৭৭ রান নিয়ে শেষ দিনের খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। দিনের তৃতীয় ওভারেই লিটনকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন এই ম্যাচে অভিষিক্ত জয়াবিক্রমা। এর আগে ১৭ রান করেন তিনি।

এর আগে ম্যাচ জিততে বাংলাদেশকে ৪৩৮ রানের লক্ষ্য বেঁধে দেয় শ্রীলংকা। চতুর্থ দিন বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই তামিম ইকবালের উইকেট হারায় বাংলাদেশ। দলীয় ৩১ ও ব্যক্তিগত ২৪ রানে রমেশ মেন্ডিসের বলে আউট হন তিনি। 

এরপর সাইফ হাসান ও নাজমুল হোসেন শান্ত দলের হাল ধরার চেষ্টা করেন। তবে কেউই বড় স্কোর করতে পারেননি। সাজঘরে ফেরার আগে সাইফ ৩৪ ও শান্ত ২৬ রান করেন।

দলের সেরা দুই টেস্ট ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক ও মুশফিকুর রহিম কেউই আস্থার প্রতিদান দিতে পারেনি। ম্যাচ বাঁচাতে যেখানে অন্তত একজনের বড় ইনিংস খেলা প্রয়োজন ছিল সেখানে দুজনই নিদারুণ ব্যর্থ।

মুমিনুল ৩২ রানে বোল্ড হওয়ার পর নিরীহ এক ডেলিভারিতে ক্যাচ তুলে দেন ৪০ রান করা মুশফিক। দিনের বাকিটা সময় আর কোনো উইকেটের পতন ঘটতে দেননি লিটন দাস ও মেহেদী হাসান মিরাজ। দুজনে অপরাজিত থাকেন যথাক্রমে ১৪ ও ৪ রানে।   

উল্লেখ্য, চতুর্থ ইনিংসে শ্রীলংকার বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর ৪১৩ রান। ঢাকায় ২০০৮ সালে এত রান করেও হেরেছিল সাকিব-মুশফিকরা। শ্রীলংকার বিপক্ষে যেকোনো ভেন্যুতে সর্বোচ্চ ৩৭৭ রান তাড়া করে জিতেছে পাকিস্তান। টেস্ট ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ৪১৮। ফলে এই ম্যাচ তথা সিরিজ জিততে চাইলে ইতিহাস গড়তে হবে টাইগারদের।