ব্রেকিং:
দেশে একদিনে আরো ৫৫ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৭৩৮ নোয়াখালীর গ্লোবের করোনা ভ্যাকসিন তৈরির দাবি করোনায় মৃত লাশ দাফন কমিটির প্রশিক্ষণ প্লাজমা দিয়েছেন করোনা জয়ী চাটখিল থানার ওসি ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ চাটখিলের মেয়ে করোনা রোগীদের অক্সিজেনের রেগুলেটর প্রদান চৌমুহনীর লঙ্গনখানায় অসহায় ছিন্নমূল মানুষের পাশে SSC (1972-2020) বেগমগঞ্জে সিএনজি চালককে পিটিয়ে হত্যা তুচ্ছ ঘটনায় বৃদ্ধা নারীকে পিটিয়ে হত্যা হতে চাইলাম শিক্ষক, বানাইলেন ম্যাজিস্ট্রেট দেশে একদিনে আরো ২৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩২৮৮ চামড়াশিল্প রক্ষায় আসছে একগুচ্ছ প্রণোদনা সবাই মাস্ক পরলে ৯০ ভাগ করোনা নিয়ন্ত্রণ জমির রেজিস্ট্রেশন ফি কমল সাবেক কূটনীতিকদের নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভার্চুয়াল সভা ৭ জুলাইয়ের মধ্যে ঢাবিতে পুরোদমে অনলাইন ক্লাস কোভিড-১৯ চিকিৎসা শুরু করছে বিএসএমএমইউ প্রতিবন্ধকতা না এলে ডিসেম্বরেই মিলবে করোনা ভ্যাকসিন অন্য দেশের চেয়ে দেশে করোনা পরিস্থিতি ভালো চলতি মাসেই জুনের বেতন পাবেন রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকরা
  • রোববার   ০৫ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২২ ১৪২৭

  • || ১৪ জ্বিলকদ ১৪৪১

১২৮০

নোয়াখালীতে সন্ধান মিললো ২৫০ বছর আগের মসজিদ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

দেশ জুড়ে কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক।নিদর্শন এর কোনোটি শত বছরের পুরনো কিংবা তারও বেশি তেমনি ভাবে ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ২৫০ বছরের পুরনো নোয়াখালীর রমজান মিয়া জামে মসজিদ। নোয়াখালী জেলার কবিরহাট উপজেলার বাটিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড়ে অবস্থিত এই মসজদি।
মসজিদটি ঠিক কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ছেে সে সর্ম্পকে সঠিকভাবে জানা না গেলেও ধারণা করা হচ্ছে ১৭৭০ খ্রিস্টাব্দ কিংবা তারও আগে জনৈক মরহুম রমজান মিয়া ৫ শতক জায়গার উপরে মসজিদটি প্রতিষ্ঠা করনে। এমন তথ্যই জানালেন, মরহুম রমজান মিয়ার চর্তুথ প্রজন্ম ও মসজিদের খাদেম শরীফুল্লাহ চৌধুরী বাবু।
৩১ ফুট দৈঘ্য ও ১০ ফুট প্রস্থের এ মসজিদের ছাদে মাঝ বরাবর একটি এবং দুই পাশে দুটি গম্বুজ রয়েছে যা পুরো ছাদকে ঢেকে রেখেছে। মসজিদের একটি মূল দরজা সহ আরো দুটি দরজা রয়েছেে এবং উত্তর ও দক্ষিণ দিকের দেয়ালে একটি করে জানালা রয়েছে।
চার ফুট চওড়া দেয়ালগুলোতে রয়েছে বিভিন্ন কারুকার্যের চিহ্ন। পশ্চিম পাশের দেওয়ালে রয়েছে একটি বড় এবং দুটি ছোট সহ ৩ টি মিম্বর। ১২ টি পিলার ও ২ টি খিলারের উপর দাঁড়িয়ে থাকা মসজিদটির ছাদে প্রত্যকে মাথায় একটি করে মিনার রয়েছে যার মধ্যে চারটি বড়। যদিও বড় মিনার গুলোর মধ্যে দুটি বর্তমানে নেই। ধারণা করা হচ্ছে বিগত সময়ের কোনো এক সময় ভূমিকম্পে দুটি মিনার ভেঙ্গে পড়ে যায়।
মসজিদটি ছোট হওয়ায় এবং ৫০ জনের বেশি মুসল্লী জায়গা না হওয়াতে মসজিদটি ভেঙ্গে নতুন করে নির্মানের কথা উঠলেও পুরোনো স্থাপত্যের নিদর্শন স্বরুপ এখনো সংরক্ষণ করা হয়ছে। পুরনো স্থাপত্য শৈলীর অর্পূব নিদর্শন এই মসজিদ যেকোনো ভ্রমনপিপাসু মানুষের নজর কাটবে।

নোয়াখালী বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর