ব্রেকিং:
অকালেই শেষ হয়ে যাবে চাটখিলের রাকিবের সব স্বপ্ন? সাহায্যের আকুতি.. ইটের ভাটার বিষাক্ত ধোঁয়ায় স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে দেড় হাজার শির্ক্ষাথী পরিচয় যাই হোক পাপিয়ার বিচার হবে: কাদের মাদকমুক্ত পরিচ্ছন্ন বসুরহাট গড়ায় মেয়র আবদুল কাদের মির্জা সংবর্ধিত সেনবাগে স্বামী হত্যায় ব্যর্থ স্ত্রী পালাল ছেলে নিয়ে ময়লা আবর্জনায় ভাসছে মাইজদী শহর পবিত্র শবে মেরাজ ২২ মার্চ ইনিংস পরাজয়ের শঙ্কায় ধুঁকছে জিম্বাবুয়ে জুতা পালিশ থেকে সানির ইন্ডিয়ান আইডল জয় তারেকের হাত ধরেই অন্ধকার জগতে পা রাখেন পাপিয়া! পুরান ঢাকায় ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান, ২০ কোটি টাকা উদ্ধার বাংলাদেশি পরিবারকে ১০ হাজার ডলার দিচ্ছে সিঙ্গাপুর নিজ ড্রাইভারের নামে মামলা করলেন এসপি বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ফাঁসির আদেশ দেয়া হয় যে রায়ে পিলখানা হত্যা দিবস আজ গর্ভবতী হয়েও সাপের মুখ থেকে মালিককে বাঁচাতে পিছুপা হয়নি সে ৭৬ বছর পর সন্ধান মিলল বিধ্বস্ত হওয়া ৩ বিমানের মদ খেলে চলবে না যে সাইকেল দলীয় নেতাকর্মীদের আঘাতে আহত হন রিজভী বেগমগঞ্জে অ্যাম্বুলেন্সে এসএসসি পরীক্ষা!
  • মঙ্গলবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১৩ ১৪২৬

  • || ০১ রজব ১৪৪১

সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
২১

নিরাপদ সবজির গ্রাম দাগনভূঞার জগতপুর

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

বিষমুক্ত শাকসবজি খাওয়ানোর সংকল্পে একজোট হয়েছেন একটি গ্রামের সব কিষান-কিষানি। শীত মৌসুম থেকে সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব, রাসায়নিক সার ও রাসায়নিক বালাইনাশক ছাড়াই নিরাপদ সবজি আবাদ করছেন তাঁরা। এতে মানুষকে বিষমুক্ত শাকসবজি খাওয়াতে পারছেন এই ভেবে গর্বিত তারা। এই কৃষকেরা সবাই ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার পূর্ব চন্দ্রপুর ইউনিয়নের জগতপুর গ্রামের বাসিন্দা। এই প্রচেষ্টার কারণে গ্রামটি এখন ‘নিরাপদ সবজির গ্রাম’ বা ‘অরগানিক কৃষি গ্রাম’ হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছে। প্রায় ৩০ জন কিষান-কিষানি এবার তাদের জমিতে চাষ করেছেন বিষমুক্ত শাকসবজি।

সরেজমিন দেখা যায়, গ্রামের চারদিক সবুজ সবজির খেতে ভরা। কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো: আব্দুল্লাহ আল মারুফের পরামর্শে গ্রামের ৩০ বিঘা জমিতে চাষ হচ্ছে বিষমুক্ত নানা রকম সবজি। বর্তমানে জমিতে রয়েছে শিম, টমেটো, ফুলকপি, খিরা, ভুট্টা, মিষ্টিকুমড়া, লাউ,মূলা ধনেপাতা, বেগুন ইত্যাদি।

এই কৃষক দলের একজন আলাউদ্দিন তিনি বলেন, ‘আগে আমরা জমিতে রাসায়নিক সার ব্যবহার করতাম। কীটনাশক স্প্রে করতাম। বিভিন্ন জাতের শাকসবজি আবাদ করেছি। তবে আমরা জানাতাম না,এ সব ফসল বিষাক্ত এবং এসব খেয়ে মানুষেরা নানা রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হতেন। আমরা কৃষি বিভাগের কাছ থেকে জানতে পারি, রাসায়নিক সার, কীটনাশক প্রয়োগে জমির ফসল বিষে পরিণত হয় এবং মাটি উর্বরতা শক্তি হারিয়ে ফেলে। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আর মানুষকে বিষ খাওয়াব না। বর্তমানে আমাদের গ্রামের সবাই নিরাপদ সবজি আবাদের সংকল্পবদ্ধ হয়েছেন।’

জগতপুর গ্রামের কৃষক নেছার উদ্দিন, নুর আলম, আবু তাহের, মোজাম্মেল হক ও বলাই চন্দ্র নাথ বলেন, কপি, বেগুন, করলা এবং লাল শাক সবজি জাতীয় সবকিছুই আমাদের এখানে আছে। আমরা সব জাতের সবজি চাষ করি। আমরা চাই বিষমুক্ত সবজি। কারণ বিষ প্রয়োগ করলে সবার ক্ষতি। বিষমুক্ত সবজি এবং নিরাপদ খাদ্য আমরা যাতে উৎপাদন করতে পারি, সে চেষ্টা করছি। আমারা চাই বাংলাদেশের মানুষ নিরাপদ সবজি খেতে পারে। সবার যাতে স্বাস্থ্য ভালো থাকে। বিষমুক্ত সবজির দামও আমরা বেশি পাবো।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মারুফ জানান, ‘নিরাপদ কৃষি গ্রাম হচ্ছে একটি পরীক্ষামূলক কার্যক্রম। প্রকৃতপক্ষে কৃষিকে বিষমুক্ত করতেই এই উদ্যোগ। এতে কৃষকের সাড়া মিলছে প্রচুর।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: রাফিউল ইসলাম বলেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে দেশের প্রতিটি উপজেলায় দুটি গ্রামকে নিরাপদ সবজি গ্রাম হিসেবে চিহ্নিত করাসহ একটি গ্রামকে নিরাপদ ফল গ্রাম হিসেবে ঘোষণা করতে বলা হয়েছে। যার মধ্যে জগতপুর একটি গ্রাম এবং বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন করার জন্য মাঠ পর্যায়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা কৃষক গ্রুপ, উঠান বৈঠকসহ হাতে-কলমে কৃষকদেরকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে থাকেন।তাই কৃষকদের মাঝে কৃষি বিভাগের পক্ষে বিষমুক্ত ফসল উৎপাদনে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এতে বিষমুক্ত ফসল উৎপাদন পদ্ধতি কৃষকদের আকৃষ্ট করেছে।

নোয়াখালী সমাচার
নোয়াখালী সমাচার
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর