ব্রেকিং:
ফেনীতে দুই বছর পূর্ণ করলেন জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুজজামান ৬ বছরের শিশু ধর্ষণ, আদালতে জবানবন্দি মাথা গোজার ঠাঁই চান ছাগলনাইয়ার ষাটোর্ধ গোলনাহার রামগঞ্জে সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন লক্ষ্মীপুরে ‘আবর্তন’এর পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান দেশে একদিনে ৩৩ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৯৯৬ তালিকা হচ্ছে বৈধ-অবৈধ হাসপাতালের মাস্ক পরা নিশ্চিতে নামবে ভ্রাম্যমাণ আদালত জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৫.২৪% বাংলাদেশের নারী কর্মকর্তাদের ভূয়সী প্রশংসা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা বিনামূল্যে ফসলের বীজ-চারা পাবেন সরকারের পদক্ষেপে সিনহার মা বোনের সন্তোষ দীর্ঘস্থায়ী বন্যার আশঙ্কায় প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধুর পররাষ্ট্রনীতিতে শিক্ষাক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য নেতৃত্ব হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের ব্রিফিং, বাইরে গোলাগুলি স্কুলছাত্রীর মৃত্যু, হত্যাকারীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ফেনী কলেজের ৭ শিক্ষকের অধ্যাপক পদে পদোন্নতি নোয়াখালীর ৪৬ প্রতিবন্ধী পেল চিকিৎসা সহায়তার চেক মাথা গোজার ঠাঁই চান গোলনাহার
  • বুধবার   ১২ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৮ ১৪২৭

  • || ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

১১

নবজাতকের মৃত্যু, ওষুধ আনার কথা বলে নার্সের পলায়ন

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৩০ জুলাই ২০২০  

সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রেখা পাল নামে এক নার্সের অবহেলায় প্রসবের সময় নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মৃত নবজাতকের বাবা রাশেদ আলমের অভিযোগ, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্সিং সুপারভাইজার রেখা পাল তাদের এক প্রকার জিম্মি করে সন্তান প্রসব করাতে বাধ্য করায় তার সন্তানের মৃত্যু হয়েছে।

নবজাতকের বাবা জানান,  তার স্ত্রী জেসমিন আক্তারের প্রসব যন্ত্রণা শুরু হলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এরপর হাসপাতালের জান্নাতুল ফেরদৌস নামে একজন মিডওয়াইফের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি তার স্ত্রীকে প্রসবের কক্ষে নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন। এ সময় নার্সিং সুপারভাইজার রেখা পাল ওই কক্ষে প্রবেশ করে মিডওয়াইফকে ভৎসনা করে বের করে দেন।

তিনি আরো জানান, তার স্ত্রীকে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া রেখা নিজেই ব্যথা কমার জন্য ইনজেকশন ও ওষুধ দিয়ে বলেন, নবজাতকের সবকিছু ঠিক আছে। এখানে নবজাতকের প্রসব করাতে হলে তাকে আট হাজার টাকা দিতে হবে। সন্ধ্যায় প্রসবের পর নবজাতকের কোনো নড়াচড়া না দেখে তারা হতাশ হয়ে পড়েন। পরে মৃত নবজাতকের গলায় কয়েকটা আঁচড়ের দাগ দেখতে পান। তার সন্তানের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে ওষুধ আনার কথা বলে নার্স রেখা পাল পালিয়ে যান। এরপর তাকে আর হাসপাতালে দেখা যায়নি। রাতে রেখা রাজনৈতিক নেতা ও বিভিন্ন লোকজনের মাধ্যমে তাকে সমঝোতার প্রস্তাব দেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা উৎপল দাশ বলেন, এ বিষয়ে রেখা পাল আমাকে কিছুই জানাননি। অন্যদের থেকে শুনে  জেনেছি। নিরাপদ প্রসবের ক্ষেত্রে নবজাতকের মৃত্যু হওয়ায় হয়তো রেখা পালের ভুল হতে পারে। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে রেখার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর