ব্রেকিং:
দেশে করোনার টিকা কবে আসবে, জানালেন স্বাস্থ্য সচিব কোনোভাবেই বেপরোয়া গাড়ি চালানো যাবে না: সেতুমন্ত্রী ছিন্নমূল শতাধিক পরিবারের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অসহায়দের মাঝে আওয়ামীলীগ নেতার কম্বল বিতরণ ব্যাংকার্স ফোরাম লক্ষ্মীপুরের অভিষেক অনুষ্ঠিত ফেনীতে ১০০ সাংবাদিককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে অবৈধ গ্যাস সংযোগ তৃণমূলের সাথে যাদের সুসম্পর্ক তাকে মনোনয়ন দেয়া হবে পরশুরামকে আলোকিত করে দিচ্ছেন পৌর মেয়র সাজেল চৌধুরী সোনাগাজী মডেল থানার উন্নয়ন ও সংস্কার কাজের উদ্বোধন করলেন এসপি ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধিতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল রায়পুরে হাসপাতালে অভিযান, ৪৫ হাজার টাকা জরিমানা ফেনীতে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি চলছে ফেনীতে আ’লীগের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন শুরু হচ্ছে আজ লক্ষ্মীপুরে এসিড সন্ত্রাসের শিকার ৩ নারী সুবর্ণচরে ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে ভূমিহীনদের মানববন্ধন নিঝুমদ্বীপে উচ্ছেদ আতঙ্কে ভূমিহীনরা ৫ টাকায় সারাদিন ইন্টারনেট ব্যবহারের পদ্ধতি তৈরি করলেন দুই বাংলাদে উন্নত প্রযুক্তির বডি স্ক্যানার বসছে শাহজালাল বিমানবন্দরে দেশের তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপিত হবে ৬৯৩ কোটি টাকায়
  • বুধবার   ০২ ডিসেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৮ ১৪২৭

  • || ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

১৮

ওরা গ্যাং কালচার থেকে গ্যাংস্টার, নিয়ন্ত্রণ করছে ভিন্ন জগৎ!

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৬ নভেম্বর ২০২০  

গ্যাং কালচার থেকে গ্যাংস্টার। রাজনৈতিক মোড়কের আড়ালে তারা গড়ে তুলেছেন ভিন্ন জগৎ। হত্যাকান্ড, মাদক ব্যবসা ও চাঁদাবাজির মাধ্যমে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করছে তারা। নিজেদের মধ্যে হিরোইজম ভাবকে টিকিয়ে রাখতে কি না করছে তারা। আর তার সবই হচ্ছে বড় ভাইদের ছত্রছায়ায়।

র‌্যাবের তথ্য অনুযায়ী, করোনাকালীন সময়ে মূলত প্রকোপ আকার ধারণ করেছে কিশোর গ্যাং। এখন পর্যন্ত র্যাবের অভিযানে কিশোর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ১৯টি। আর চলতি বছরেই র্যাব কতৃক গ্রেফতার হয়েছে ২৭২ জন। ঢাকা মহানগরীতে বর্তমানে সক্রিয় গ্যাং রয়েছে ২৩টি। স্থানীয় বড় ভাইদের নিয়ন্ত্রণে চলে এসব কিশোর গ্যাং।

ডেইলি বাংলাদেশের অনুসন্ধানে জানা যায়, রাজধানীর উত্তরায় শফিকুল হাসান ওরফে সানী ও শাকিল হোসেন ওরফে ড্যান্সার শাকিল নামে আপন দুই ভাই মিলে গড়ে তুলেছে এক অপরাধের মহারাজ্য। বড়ভাই ড্যান্সার শাকিল মাদক ব্যবসা আর ছোট ভাই সানী স্থানীয় ছাত্রনেতা। রাজনৈতিক মোড়কের আড়ালে তারা গড়ে তুলেছেন ভিন্ন এক জগৎ। সানী গড়ে তুলেছে শতাধিক সদস্যের এক কিশোর গ্যাং। দুই ভাইয়ের নামে রাজধানীর দুটি থানায় হত্যা, হত্যাচেষ্টা ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৬টি মামলার সন্ধান মিলেছে। এরপরও ধরাছোঁয়ার বাইরে তারা।

রাজধানীর দক্ষিণখানের গোয়ালটেকের চিশতিয়া মার্কেটের পাশেই এই দুই ভাইয়ের নিজস্ব বাড়ি। সেখানেই থাকেন তারা। নানার কাছ থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে তারা বাড়িটির জায়গা পেয়েছে বলে জানায় এলাকাবাসী। তবে দুই ভাই বাড়িটি বানিয়েছেন অবৈধ টাকায়।

সরেজমিন অনুসন্ধানে দেখা যায়, রাজধানীর উত্তরার আব্দুল্লাহপুর পলওয়েল মার্কেটের সামনে, দিয়াবাড়ি বিআরটিএ অফিসের সামনে, উত্তরা ১০ নম্বর সেক্টর, ১১ নম্বর সেক্টর ও ৭ নম্বর সেক্টর এলাকায় হত্যাকাণ্ড, মাদক ব্যবসা ও চাঁদাবাজির মাধ্যমে ত্রাস সৃষ্টি করে আসছে কিশোর গ্যাং।

সম্প্রতি গত ২৭ আগস্ট রাতে উত্তরখান এলাকায় কলেজছাত্র মো. সোহাগকে হত্যা করে সানীর কিলার গ্রুপ। এরপর থেকে সানী ও ড্যান্সার শাকিল আত্নগোপনে যায়।

স্থানীয়রা বলছেন, দামি ব্র্যান্ডের পোশাক, জুতা, দামি মোটরসাইকেল ও গাড়ি নিয়ে চলাফেরা সানীর। তার সঙ্গে থাকত কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের মোটরসাইকেল বহর। তার কিশোর গ্যাং গ্রুপের নাম ‘সানী গ্রুপ’। কেউ কেউ এটিকে ‘রগকাটা গ্রুপ’ হিসেবেও চেনে। উত্তরা ও আব্দুল্লাহপুরের বিভিন্ন স্থানে চাঁদাবাজি করেন তারা। তবে ভয়ে কেউ তাদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পান না। তার কথার অবাধ্য হওয়ায় অন্তত তিনটি খুনের ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে জানান তারা।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, বড় ভাইয়ের মাদক ব্যবসায় সহযোগীতা করে সানী। সানীর নামে ২০১৯ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর রাজধানীর দক্ষিণখান থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়। চলতি বছরের ৩ আগস্ট উত্তরা পূর্ব থানায় একটি হত্যা মামলা হয় তার নামে।
সর্বশেষ গত ২৮ আগস্ট উত্তরখানে কলেজছাত্র সোহাগ হত্যাকান্ডের ঘটনায় সানীর নামে উত্তরখান থানায় মামলা হয়। সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ও খুনোখুনির ঘটনায় মামলা হলেও অজানা কারণে কখনো গ্রেফতার হননি সানী।

সরেজমিনে জানা যায়, সানীর বড়ভাই ড্যান্সার শাকিল উত্তরার বিভিন্ন এলাকায় শক্তিশালী মাদক সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছেন। আব্দুল্লাহপুর কোর্টবাড়ী ও উত্তরা পাবলিক কলেজের পাশের রেললাইন এলাকায় তার মাদকের শক্তিশালী সিন্ডিকেট সক্রিয়। এই মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে খুনাখুনিতেও জড়িয়েছেন ড্যান্সার শাকিল।

জানা যায়, ২০১৬ সালের ১ জুলাই দক্ষিণখান থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে শাকিলের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। ২০১৭ সালের ১৭ সেপ্টম্বর উত্তরা পূর্ব থানায় তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। ২০১৮ সালের ১৪ জানুয়ারি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে আরেকটি মামলা দায়ের হয়। মাদক মামলায় গ্রেফতার হলেও কিছুদিন পরই আবার জামিনে বেরিয়ে আসেন ড্যান্সার শাকিল। জামিনে বেরিয়ে ফের মাদক ব্যবসা শুরু করেন।
সানী ও ড্যান্সার শাকিল দুই ভাই পলাতক থাকায় তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া গেছে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ ডেইলি বাংলাদেশকে জানান, স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় করোনাকালীন সময়ে প্রকোপ আকার ধারণ করেছে কিশোর গ্যাং। সম্প্রতি  স্থানীয় বড় ভাইদের ছত্রছায়ায় এরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। এই গ্যাংগুলো মূলত পাড়া-মহল্লা কেন্দ্রিক ক্ষমতা বিস্তার করে থাকে। 

কিশোর অপরাধ বন্ধে পারিবারিক বন্ধন ও শিশু কিশোরদের লালনপালন করা জরুরি বলে মনে করেন র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

স্থানীয় বড় ভাইদের প্রসঙ্গে র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, র‌্যাব মূলত যেকোনো জায়গায় যেকোনো পরিস্থিতিতে ফৌজদারি অপরাধ বা ফৌজদারি আইনের ব্যত্যয় ঘটলেই র‌্যাব সেখানে ব্যবস্থা নেয়। তাদের বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, আমি নতুন এসেছি। এ ব্যাপারে জেনে তার পর আপনাকে জানাতে পারব।

অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর